২০ হাজার ইয়াবাসহ সস্ত্রীক এপিবিএন কর্মকর্তা আটক

কক্সবাজার প্রতিনিধি
কক্সবাজারে ২০ হাজার ইয়াবাসহ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (১৬ এপিবিএন) এক কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীকে আটক করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। শুক্রবার (১৯ মে) সোয়া ১০ টায় কক্সবাজার শহরের কলাতলী মোড় এলাকার গ্রীন লাইন পরিবহন সার্ভিসের কাউন্টার থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের সমেশপুর মণ্ডলবাড়ী এলাকার বাসিন্দা রেজাউল করিম (৪৭) ও তার স্ত্রী মলিনা পাশা (৪৩)।

রেজাউল করিম টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের আলিখালী রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরের এপিবিএন পুলিশ ক্যাম্পে উপ-পরিদর্শক (এসআই) পদে কর্মরত।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-পরিদর্শক (এসআই) তুন্তু মনি চাকমা বলেন, শুক্রবার রাতে টেকনাফের রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) এক সদস্য মাদকের একটি চালান নিয়ে পরিবহনযোগে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার খবর পায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। পরে সংস্থাটির একটি বিশেষ দল সন্দেহজনক এপিবিএন পুলিশ সদস্যের গতিবিধি নজরদারিতে রাখে।

তিনি বলেন, ‘এক পর্যায়ে রাত সোয়া ১০ টায় কক্সবাজার শহরের কলাতলী মোড় এলাকার গ্রীন লাইন পরিবহন সার্ভিসের কাউন্টারে রেজাউলকে সস্ত্রীক অবস্থানের খবর পাওয়া যায়। সেখানে অভিযান চালিয়ে বাস কাউন্টার থেকে দুইজনকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের সাথে রাখা তালাবদ্ধ ব্যাগ খুলে ২০ হাজার ইয়াবা ও একটি ওয়াকিটকি পাওয়া যায়। ’

মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘আটক ব্যক্তি এপিবিএন পুলিশের সদস্য কিনা তা যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে এপিবিএন পুলিশের সংশ্লিষ্টদের অবহিত করা হয়েছে।’

টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের আলিখালী রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরের নিরাপত্তায় নিয়োজিত এপিবিএন পুলিশ ক্যাম্পের উপ-পরিদর্শক পদবীর এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, ইয়াবাসহ সস্ত্রীক আটক ব্যক্তি এপিবিএন পুলিশের সদস্য।

আটকদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে কক্সবাজার সদর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান এসআই তুন্তু মনি চাকমা।

সিএনএন//এস//